রবিবার, ২৭ সেপ্টেম্বর ২০২০, ১১:৫৭ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম:
রূপসী পাড়ায় হত-দরিদ্র ও কর্মহীন পরিবারের মাঝে ত্রাণ বিতরণ- কৃষি বিল নিয়ে মানুষকে ভুল বোঝাচ্ছেন বিরোধীরা-বিজেপি নেতা জয় প্রকাশ মজুমদার কালীগঞ্জে সরকারি চাকরি দেওয়ার নামে তপন সাধুর প্রতারণা! কুষ্টিয়ার দাদা রাইস ব্রান্ডের নামে বরিশাল বাজারে যাচ্ছে নিন্মমানের চাল- শেখ হাসিনার সরকার বাংলাদেশের সকল নদী শাসনের জন্য কাজ করে যাচ্ছে- পানি সম্পদ প্রতিমন্ত্রী কর্নেল (অব.) জাহিদ ফারুক নওগাঁর মান্দায় প্রেমের টানে প্রেমিকের বাড়ীতে প্রেমিকা ভোর ৪টায়- কুমারখালী মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের সভাপতি ও অধ্যক্ষের বিরুদ্ধে দুর্নীতির অভিযোগ- জনদুর্ভোগ চরমে কালিয়ার ডুমুরিয়া গ্রামের রাস্তার বেহাল অবস্থা- ফুলবাড়ীতে মহিলাসহ গরু চোর চক্রের তিন সদস্য আটক- কুষ্টিয়ায় বিট পুলিশিং কর্মশালার শুভ উদ্বোধন- কুষ্টিয়া জেলা আ’লীগের সভাপতি সদর উদ্দিন খাঁন একজন বঙ্গবন্ধুর আদর্শের সৈনিক-
ঘোষণা:

সাড়ে ৯ লাখ টাকায় বিক্রি ছাগল!

আট লাখ রুপিতে বিক্রি হওয়া সেই ছাগল। ছবি : সংগৃহীত

 

আট লাখ রুপিতে বিক্রি হওয়া সেই ছাগল। ছবি : সংগৃহীত

ভারতের উত্তরপ্রদেশের গোরক্ষপুরের বাজারে একটি ছাগল আট লাখ রুপিতে (বাংলাদেশি ৯ লাখ ৪৯ হাজার ৯১৫ টাকা) বিক্রি হয়েছে। সালমান নামের ওই ছাগলটির গায়ে ‘আল্লাহ’ লেখার আকার দেখা গেছে।

কলকাতার দৈনিক সংবাদ প্রতিদিনের এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, কোরবানির উদ্দেশ্যে কয়েকদিন ধরেই দেশের বিভিন্ন পশু হাটে ভিড় জমাচ্ছিলেন মুসলিম সম্প্রদায়ের লোকজন। বেশ চড়া দামে ছাগল থেকে শুরু করে অন্যান্য পশুও বিক্রি হচ্ছিল।

বিক্রেতার সঙ্গে দরদাম করে নিজের পছন্দ মতো পশু বাড়ি নিয়ে যাচ্ছিলেন সবাই। এরই মাঝে গোরক্ষপুরে বাজারে গিয়ে চোখ কপালে ওঠে ক্রেতাদের। একটি ছাগলের গায়ে ‘আল্লাহ’ নাম লেখা রয়েছে। আসলে ছাগলটির রঙই এমন। দেখে মনে হয় যেন আরবিতে আল্লাহ শব্দটি ছাপা রয়েছে তার গায়ে। ছাগলটি শেষ পর্যন্ত বিক্রি হয় আট লাখ রুপিতে।

শরীরে থাকা লোমে আল্লাহ শব্দটি লেখা আছে।

ওই ছাগলের মালিক গোরক্ষপুরের পশু ব্যবসায়ী মোহাম্মদ নিজামুদ্দিন বলেন, ‘ছাগলটির শরীরে জন্ম থেকেই প্রাকৃতিকভাবে উর্দুতে আল্লাহ লেখা ছিল। ছাগলটিকে আল্লাহ নিজের দূত হিসেবে পাঠিয়েছে। তাই ওর শরীরে থাকা লোমে আল্লাহ শব্দটি লেখা আছে। ওকে কোরবানি করলে গ্রাহকের মনস্কামনা পূরণ হতে পারে। তাই চড়েছে দাম।’

ছাগলটির মালিক বলেন, ‘৯৫ কেজি ওজনের ওই ছাগলটির রক্ষণাবেক্ষণের জন্য প্রতিদিন ৮০০ রুপি করে খরচ হতো। নিজের জন্যও অত রুপি খরচ করিনি।’


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *


ফেসবুকে আমাদের অনুসরণ করুন