বৃহস্পতিবার, ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২০, ০৭:৫৫ অপরাহ্ন
শিরোনাম:
রূপসী পাড়ায় হত-দরিদ্র ও কর্মহীন পরিবারের মাঝে ত্রাণ বিতরণ- কুষ্টিয়ায় বালিয়াপাড়ায় র‌্যাবের অভিযানে মাদকদ্রব্য সহ আটক-২ দেশে করোনার সেকেন্ড ওয়েভ শুরু হয়ে গেছে- হাওড়া মংলা হাটের ফুটপাথ ব্যবসায়ী সমিতি সরকারের বিরুদ্ধে আন্দোলনে নামলেন- ডাকাতদলে আওয়ামী লীগ নেতা চেয়ারম্যান প্রার্থী! মাহবুব-উল আলম হানিফ এমপি সাথে কুষ্টিয়া প্রেসক্লাব কেপিসি’র মতবিনিময় সভা- রোয়াংছড়িতে নারী ও শিশু উন্নয়নের সচেতনামূলক যোগাযোগ শীর্ষক কার্যক্রম কর্মশালা- চট্টগ্রাম দক্ষিণ জেলার মহাসড়ক সংস্কারের মহাপরিকল্পনা হাতে নিচ্ছে সরকার- মাহবুব-উল আলম হানিফ এমপির সাথে নবগঠিত কুষ্টিয়া জেলা ইউনাইটেড অনলাইন প্রেসক্লাবের সৌজন্য সাক্ষাৎ- স্থায়ীকরণের দাবীতে উচ্চ মাধ্যমিক ও মাধ্যমিক স্কুলের শিক্ষক শিক্ষিকারা আন্দোলনে নামলেন- কুষ্টিয়ায় খাদ্য বান্ধব কর্মসূচির কার্ড বিতরণে অনিয়ম: গরিবের চাল ধনীদের পেটে-
ঘোষণা:

সুন্দরী সাধনার সঙ্গে যেভাবে অবৈধ সম্পর্ক গড়ে ওঠে জামালপুরের ডিসির

এম.এ.নাঈম :: পিয়ন পদে চাকরি করলেও ডিসি অফিসে দোর্দণ্ড প্রতাপে দাপিয়ে বেড়াতেন সানজিদা ইয়াসমিন সাধনা তার প্রভাবের মুখে সব সময় কর্মকর্তা কর্মচারীরা থাকতো তটস্থ শুধু কর্মচারীরাই নয় উর্ধতন কর্মকর্তাদেরও থোড়াই কেয়ার করতেন তিনি চাকরি হারানোর শংকায় প্রতিবাদ করতে সাহস পেত না কেউতবে জেলা প্রশাসক আহমেদ কবিরের সঙ্গে অশ্লীল ভিডিও ভাইরালের পর ভুক্তভোগী কর্মকর্তাকর্মচারীরা মুখ খুলতে শুরু করেছেন

নাম প্রকাশ না করার শর্তে বেশ কজন কর্মকর্তা কর্মচারী প্রতিবেদককে বলেন, সাধনা ২০১৮ সালে উন্নয়ন মেলায় হস্তশিল্পের স্টল বরাদ্ধ নেয়ার জন্য জেলা প্রশাসক আহমেদ কবিরের সাথে দেখা করেন। তার রূপে মুগ্ধ হয়ে বিনামূল্যে স্টল বরাদ্দ দেন জেলা প্রশাসক

উন্নয়ন মেলা চলাকালীন তাদের মধ্যে অনৈতিক সম্পর্ক গড়ে উঠে। পরবর্তীতে যা শারীরিক সর্ম্পকে রূপ নেয়। এমন একটি ভিডিও ভাইরাল হয়েছে তাদের। ইতোমধ্যে আহমেদ কবিরকে ওএসডিও করা হয়েছে

২০১৯ সালের জানুয়ারিতে ডিসি অফিসে ২৭ জনকে অফিস সহায়ক পদসহ ৫৫ জনকে নিয়োগ করা হয়। সেই সর্ম্পকের সূত্র ধরে সানজিদা ইয়াসমিন সাধনা নিজে তার দুই আত্মীয় রজব আলী সাবান আলীকে অফিস সহায়ক পদে নিয়োগ পাইয়ে দেন

সাধনা অফিস সহায়ক পদে যোগদান করার পর জেলা প্রশাসকের অফিস রুমের পাশে খাস কামরাটিতে মিনি বেড রুমে রূপান্তর করতে খাট অন্যান্য আসবাবপত্রসহ সাজ্জসজ্জা করেন। সেই রুমেই চলতো তাদের রঙ্গলীলা

অফিস চলাকালীন সময়ে তাদের রঙ্গলীলা অবাধ করতে সেই কামরার দরজায় বসানো হয়েছিল লাল সবুজ বাতি। রঙ্গলীলা চলাকালে লালবাতি জ্বলে উঠতো। দরজার সামনে দাঁড়িয়ে থাকতো বিশ্বস্ত পিয়ন। এই সময় কর্মকর্তাকর্মচারীসহ সবার জন্য প্রবেশাধিকারে নিষেধাজ্ঞা ছিল

সময় তার অফিসের বাইরে ফাইলপত্র নিয়ে অপেক্ষায় থাকতো কর্মকর্তাকর্মচারীসহ অনেকেই। লীলা শেষে পরিপাটি হয়ে যখন চেয়ারে বসতো তখন জ্বলে উঠতো সবুজ বাতি। সবুজ বাতি জ্বলে উঠার পরেই শুরু হতো দাপ্তরিক কার্যক্রম

ডিসি অফিসে গুঞ্জন রয়েছে, ছায়া ডিসি সাধনার হাতে লাঞ্চিত হয়েছেন একাধিক উর্ধ্বতন কর্মকর্তা। ডিসির প্রভাব খাটিয়ে বিভিন্নি দপ্তরে বদলি, নিয়োগ শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে ভর্তি বাণিজ্য করে হাতিয়ে নিয়েছেন লাখ লাখ টাকা। জেলা প্রশাসকের স্বাক্ষরিত কাজে সাধনাকে ম্যানেজ করতো সুবিধাভোগীরা। সবার মাঝেই ছায়া ডিসি হিসেবে পরিচিতি লাভ করেছিলেন এই প্রভাবশালী পিয়ন।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *


ফেসবুকে আমাদের অনুসরণ করুন