সোমবার, ২৬ অক্টোবর ২০২০, ১০:২৬ অপরাহ্ন
শিরোনাম:
ঘোষণা:

গার্মেন্টস শ্রমিকের পাওনা বুঝিয়ে দিয়ে কেড়ে নিল কতৃপক্ষ-

সিদ্দিকুল ইসলাম রিপন বিশেষ প্রতিনিধি,সময়ের পথঃ-

মানিকগঞ্জের সিংগাইর উপজেলার, ধল্লা ইউনিয়নের বিনাডাঙ্গী গ্রামে অবস্থিত, এস্পায়ার গার্মেন্টস লিমিটেড। গার্মেন্টস টি মিথ্যা অভিযোগ দেখিয়ে বেশ কিছু শ্রমিক ছাঁটাই করেছে বলে জানা গেছে। তন্মধ্যে মোঃ আলী হাসান মীর(৩০) নামে এক ব্যক্তি ১০/০৮/২০২০ তারিখে সিংগাইর থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করে। দীর্ঘ ৩ বছর যাবৎ তিনি এস্পায়ার গার্মেন্টসে স্যাম্পল ম্যান, পদে চাকরি করে আসছিলেন। তিনি বলেন গত ঈদ-উল-ফিতর ঈদে ঈদ বোনাস কম দেওয়াই (Accord) নামে একটি সংস্থায় অভিযোগ করে। এইজন্য এস্পায়ার গার্মেন্টসের এইচ, আর, জি, এম, কোহিনুর ইসলাম ক্ষিপ্ত হয়ে, মোঃ আলী হাসান মীর কে অফিস কক্ষে ডেকে নিয়ে, বেশ কিছু সাদা কাগজ ও একটি নন-জুডিশিয়াল স্ট্যাম্পে জোরপূর্বক স্বাক্ষর নিয়ে রাখে। এরপর এস্পায়ার গার্মেন্টসে উৎপাদিত একটি প্যান্ট জোরপূর্বক তার হাতে ধরিয়ে মোবাইলে ছবি উঠিয়ে চুরির অভিযোগে তাকে চাকরীচ্যুত করে। এরপর তার সকল পাওনাদি বুঝিয়ে দেয়ার কথা বলে একাউন্টসে নিয়ে গিয়ে বেতনের সিটে স্বাক্ষর করিয়ে টাকা হাতে দেওয়ার সময় ভিডিও ধারণ করে, অতঃপর টাকাগুলো জোরপূর্বক কেড়ে নিয়ে তাকে তাকে বলে এই বিষয়ে (Accord) বা কোন শ্রমিক সংগঠনে যেন অভিযোগ না করে, তাহলে দুই মাস পর তাকে পাওনাদি বুঝিয়ে দেয়া হবে আর যদি অভিযোগ করে তাহলে টাকা দেওয়া হবে না। সেজন্যই টাকাটা আটকে রেখে তাকে বের করে দেয়। এই বিষয়ে এস্পায়ার গার্মেন্টসের এইচ, আর, জি, এম, কোহিনুর ইসলামের কাছে জানতে চাইলে, তিনি সাংবাদিক পরিচয় পেয়ে ব্যস্ততা দেখিয়ে ফোন কেটে দেয়। পরবর্তীতে মোবাইলে যোগাযোগ করে পাওয়া যায় নাই। ঘটনার সত্যতা যাচাই করার জন্য অভিযোগের তদন্ত পুলিশ কর্মকর্তা, সিংগাইর থানার সাব -ইন্সপেক্টর মনোয়ার হোসেন এর কাছে জানতে চাইলে, তিনি বলেন অভিযোগটি ভিত্তিহীন। কোন প্রমাণের ভিত্তিতে তিনি অভিযোগটি ভিত্তিহীন বলছেন এটা জানতে চাইলে, তিনি তার কোনো সৎ উত্তর দিতে পারে নাই। অন্যদিকে এই বিষয়ে জাগো বাংলাদেশ গার্মেন্টস শ্রমিক ফেডারেশনের কেন্দ্রীয় কমিটির সহ- সাংগঠনিক সম্পাদক অন্তর রহমান ও গার্মেন্টস শ্রমিক ঐক্য ফোরাম সাভার থানার সাধারণ সম্পাদক নয়ন আহমেদ সাংবাদিকদের বলেন, এই ঘটনার সত্যতা যাচাই করার জন্য তারা এস্পায়ার গার্মেন্টসের এইচ, আর, জি, এম, কোহিনুর ইসলাম এর সাথে কথা বলেন, কিন্তু তিনি তাদেরকে কোন কিছু না বলে এই বিষয়টা নিয়ে চুপচাপ থাকার নির্দেশ দেন। তার এরূপ কথাবার্তায় শ্রমিকের অসহায়ত্বের কথা চিন্তা করে অসন্তোষ প্রকাশ করে। শ্রমিক নেতারা আরও বলে এই বিষয়টি শ্রমিকের অধিকার আদায়ের সংগঠনগুলোর আলোচনার শীর্ষে বিরাজমান রয়েছে খুব শীঘ্রই বিষয়টি আইনি প্রক্রিয়ায় সমাধান করার প্রক্রিয়া চলছে বলে জানান। এ বিষয়ে অভিযুক্ত শ্রমিক মির আলী হাসান বিষয়টি সুষ্ঠু তদন্ত করে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষকে আইনি পাওনাদি বুঝিয়ে দেওয়ার জোর দাবি জানিয়েছে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *


ফেসবুকে আমাদের অনুসরণ করুন