শনিবার, ৩১ অক্টোবর ২০২০, ১১:০৫ অপরাহ্ন
শিরোনাম:
বিপুল পরিমান ইয়াবাসহ আটক ০১!র‌্যাব-০৭ নড়াইলে বর্নাঢ্য আয়োজনের মধ্য কমিউনিটি পুলিশিং ডে অনুষ্ঠিত আজ নওগাঁয় কমিউনিটি পুলিশিং ডে ২০২০ পালন কুষ্টিয়া কুমারখালী সরকারী পাইলট বালিকা বিদ্যালয়ের এক নড়াইলের ছেলে সাদাত শান্তি পুরস্কারের চুড়ান্ত তালিকায়। ঈদ-এ মিলাদুন্নবী শোভাযাত্রা নিয়ে সংশয়ে আছেন কমিশনার! নড়াইলের পল্লীতে সরকারি টেন্ডার ও চিঠি ছাড়া রাস্তার গাছ কাটলো কারা কুষ্টিয়া পৌর মেয়র হিসেবে আতাউর রহমান আতার কোনো বিকল্প নেই সাইফুদ দৌলা তরুণ। সিলেটগামী ট্রেনের সিডিউল হঠাৎ বাতিল!! কুষ্টিয়ার মিরপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভুয়া সনদ বিক্রির অন্তরালে জড়িত কারা উদঘাটন জরুরী-
ঘোষণা:

নওগাঁয় ইয়াবা দিয়ে সাংবাদিককে ফাঁসানোর অভিযোগ-

হাবিব স্টাফ রিপোর্টার নওগাঁ,সময়ের পথঃ-

নওগাঁর মহাদেবপুর উপজেলার সাংবাদিক সুইট হোসেনকে ইয়াবা দিয়ে ফাঁসানোর অভিযোগ উঠেছে। সে জাতীয় দৈনিক স্বাধীন সংবাদ ও তরঙ্গ নিউজ ২৪. কম এ কাজ করে। বর্তমানে বাংলাদেশ সম্মিলিত সাংবাদিক ফোরাম নওগাঁ জেলা শাখার সাংগঠনিক সম্পাদকের দায়ীত্ব পালন করছে।

গতকাল বুধবার (৮ জুলাই) সন্ধ্যায় উপজেলার নওহাটা মোড় থেকে তাকে আটক করে নওহাটা ফাঁড়ীর পুলিশ।

প্রত্যক্ষদর্শী সূত্রে জানা যায়, সাংবাদিক সুইট হোসেন তার ব্যবসায়ী প্রতিষ্ঠান নওগাঁ জেলার মহাদেবপুর উপজেলার নওহাটার মোড়ে। প্রতি দিনের মত গতকালও সে তার প্রতিষ্ঠানের সামনের মোটরসাইকেল রেখে সুন্ধায় বাহিরে বাজারে এসে বাড়ীর জন্য বাজার করেছে। এরপর মোটরসাইকেল নিয়ে বাড়ীতে যাবার পথে বাচ্চার ঔষধ নিতে আবারও ঔষধের দোকান থেকে ঔষধ কিনে বাড়ী যেতে লাগলে, নওহাটা ফাঁড়ীর কন্সটেবল সারোয়ার সাধারন পোষকে এসে তাকে বলে, আপনার কাছে অবৈধ জিনিস আছে। তখন অবাক হয়ে সাংবাদিক সুইট বলে, এটা কেমন কথা বলেন, সে সৎ মনোবল নিয়ে বলে, আমাকে চেক করে দেখুন, তখন সাংবাদিক সুইটকে চেক করে কিছুই পায় না। এরমধ্য স্থানীয় লোকজন জড়ো হলে একজনকে বলে, ওর মটোরসাইকেলের সিটে দেখুন, তখন মটোরসাইকেলের সিটের সামনের ট্যাংকির সাথে লাগানো ভাঁজ থেকে ৪৪পিচ ইয়াবা বের করে তাকে আটক করে। স্থানীয়রা জানায়, তখনও সাংবাদিক সুইট হোসেন বার বার বলছিলেন, আমাকে এভাবে ফাঁসাচ্ছেন কেন? এখানে উল্লেখ্য থাকে যে, কিছুদিন পুর্বে ফাঁড়ীর কন্সটেবল সারোয়ার হোসেনের ফেসবুক আই ডি হ্যাক হয়েছে বলে, সাংবাদিক সুইটকে সন্ধেহ করে চ্যালেন্স করে বলেছিলেন, সাংবাদিক সুইট হোসেন ই আমার ফেসবুক আইডি হ্যাক করেছে এবং আইসিটি আইনে মামলা করবে বলেও ভয় দেখায়। পরর্বর্তীতে সুইট হোসেন বিষয়টি চ্যালেন্স করলে, কন্সটেবল সারোয়ার এ বিষয়ে কোন সত্যতা প্রমান করতে পারে নাই, ফলে উভয়ের মধ্য মনোমালিন্য সৃষ্টি হয়। কন্সটেবল সারোয়ারকে ট্রাকিং এর পরামর্শও দেয় সুইট হোসেন। এবং বলেন, দয়া করে যাকে,তাকে আমার কথা বলে আমাকে দোষারুপ করবেন না, বলে জানিয়ে দেয়। এ নিয়ে তাদের মধ্য একটা কঠিন মনোমালিন্যতা হয়।
ওই সময় ঘটনাস্থলে উপস্থিত থাকা রুবেল হোসেনের জানান, সুইটের মোটরসাইকেলের সিটের সামনে থেকে ইয়াবা উদ্ধার করা হয়েছে। কেউ ৪৪ পিচ ইয়াবা বহন করলে সিটের ভিতরে বা আরও গোপন স্থানে রাখবে। আর সুইটের এখানে ব্যবসা প্রতিষ্ঠানসহ সে এখানকার স্থানীয়। সে ইয়াবার ব্যবসা করলে অনাআশে যে কোন স্থানে রাখতে পারতো। এটি সাজানো ছাড়া আর কিছুই না।

আটক সাংবাদিক সুইট হোসেন বলেন, আমার সাথে দীর্ঘদিন ধরে স্থানীয় সাংবাদিক জি এম মিঠুনের সাথে দ্বন্দ্ব চলে আসছে। সেও আমার গাড়িতে ইয়াবা রেখে আমাকে ফাঁসাতে পারে। এবং মহাদেবপুর উপজেলার ভীমপুর ইউনিয়ন যুবলীগের সাধারন সম্পাদক কামরুজ্জামান বাবুর বিরুদ্ধে একটি ধর্ষনের অভিযোগ হয়েছিলো, সে বিষয়ে নিউজ করেছিলাম, তাকে যুবলীগ দল থেকে বহিস্কারও করা হয়। পরবর্তীতে সেও আমাকে শাসিয়ে ছিলো, এবং তার ভাতিজা রুবেল ও একটি ফর্সা করে লোক ৩/৪ দিন থেকে আমার দোকানের আশে,-পাশে ও মোরসাইকেলের কাছে খুব ঘুরাঘুরি করেছিলো, সবার জোগসাজসে রুবেলের দ্বারাই এই কাজটি হয়েছে। আমার এই বিষয়টির সঠিক তদন্ত করলে আমি নির্দোষ সেটি প্রমাণ হয়ে যাবে। আমি এই ঘটনার সঠিক তদন্তের দাবি জানাচ্ছি।

নওগাঁ জেলা প্রেসক্লাব এর সাধারন সম্পাদক মোঃ আবুবক্কর সিদ্দিক বলেন, বিষয়টি খুবই দুঃখ জনক এবং তিনি এর সঠিক তদন্তের দাবী জানান। নওগাঁ জেলা সাংবাদিক ইউনিয়নের সাধারন সম্পাদক এস এম আজাদ হোসেন মুরাদ জানান, সম্প্রতি জেলার সাংবাদিকদের মধ্যে অভ্যন্তরীন দন্দ্বের সুযোগ নিয়ে বিভিন্ন প্রকার হয়রানী মুলক মামলা বৃদ্ধি পাচ্ছে, মামলার কারন অনুসন্ধান করে প্রকৃত দোষীদের বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় ব্যাবস্থা নেওয়ার জন্য সংশ্লিষ্ঠ কর্তৃপক্ষর নিকট দাবী জানিছেন। মহাদেবপুর প্রেসক্লাবের সভাপতি গৌতম কুমার মহন্ত বলেন, পুলিশের উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষের নজরদারীতে সঠিক তদন্ত করে, প্রকৃত দোষীদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যাবস্থা নেওয়ার দাবি জানিয়েছেন এবং সেই সাথে সাংবাদিক সুইট হোসেনের নিশর্ত মুক্তির দাবী জানিয়েছেন। বাংলাদেশ সম্মিলিত সাংবাদিক ফোরাম নওগাঁ জেলা শাখার সভাপতি, এ,বি,এম হাবিবুর রহমান হাবিব বলেন, যেহেতু বিষয়টি কন্সটেবল সারোয়ার,বহিস্কৃত যুবলীগ নেতা ও সাংবাদিক মিঠুনের সাথে পুর্ব শত্রুতা বিষয় জড়িয়ে আছে। তার জের ধরে এই ঘটনাটি ঘটতে পারে। তাই পুলিশের উর্ধতন কর্মকর্তার পদক্ষেপে সঠিক তদন্ত করে, দোষীদের আইনের আওতায় নেওয়ার দাবী জানান এবং সাংবাদিক সুইট হোসেনের মুক্তির দাবী জানান। বাংলাদেশ সম্মিলিত সাংবাদিক ফোরাম সাধারন সম্পাদক মোঃ আমজাদ হোসেন জানান, বিষয়টি ষড়যন্ত্রমূলক বলে প্রাথমিক ভাবে ধারণা করা যাচ্ছে, সঠিক তদন্তের মাধ্যমে দোষীদের আইনের আওতায় নেওয়ার দাবী জানান।

মহাদেবপুর থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) নজরুল ইসলাম জুয়েল জানান, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে তাকে তল্লাশি করে ইয়াবাসহ আটক করা হয়েছে। আজ সকালে তাকে আদালতে প্রেরণ করা হয়েছে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *


ফেসবুকে আমাদের অনুসরণ করুন