বুধবার, ২৮ অক্টোবর ২০২০, ১১:৫৪ অপরাহ্ন
শিরোনাম:
ফুলবাড়ীতে ক্ষতিগ্রস্ত কৃষকদের ক্ষতিপূরণ বাবদ নগদ অর্থ প্রদান যশোর উন্নয়ন ও বিভাগ বাস্তবায়ন পরিষদ তাদের ১১ দফা বাস্তবায়, নড়াইলে অনুষ্ঠিত সংবাদ। লালমনিরহাটের কালীগঞ্জে মৃত ব্যক্তির নামে চেক নিয়ে ১০ হাজার টাকা নজরানা নিলেন যুবলীগ নেতা কাঞ্চন। মৃত্যুর সাথে লড়াই করে হেরে গেলেন নড়াইলের শাওন। নড়াইলে শিশু পরিবারের আট এতিমকে সংশোধনের জন্য দুই মাসের ছুটি সার্ভেয়ার মান্নানের তেলেছমতি কারবার : টাকা দিলে বাঁকা : না দিলে ফাঁকা রামগড়ে মুক্তিযোদ্ধা সন্তান কমান্ডের ১০ম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উদযাপিত পীর বজলুর রহমান ( বুজু) ফকিরের মৃত্যু । কুষ্টিয়ায় ইউপি চেয়ারম্যান কেরামত আলী বিশ্বাসসহ ১১জনের বিরুদ্ধে জমি জালিয়াতির অভিযোগ নড়াইলের কালনা সেতুতে পূরণ হতে চলেছে ১০ জেলাবাসীর স্বপ্ন।
ঘোষণা:

নওগাঁয় মুক্তিযোদ্ধাকে কোদাল দিয়ে কুপিয়ে জখম করার ঘটনায় থানায় অভিযোগ-

স্টাফ রিপোর্টার নওগাঁ,সময়ের পথঃ-

নওগাঁ সদর উপজেলার হাঁপানিয়া ইউনিয়নের হাঁপানীয়া মোড়ের রাস্রার পাশে মুক্তিযোদ্ধা মোঃ ময়েন উদ্দীন ওরফে খোকন এর দোকানের সামনে ইটের খোয়া ও মাটি দিয়ে জলবদ্ধতা সৃষ্টি করে। সেখানে বাঁধা দিতে গেলে মুক্তিযোদ্ধাকে কোদাল দিয়ে কুপিয়ে মারাত্বক জখন করে।
অভিযোগ সুত্রে ও সরজমিনে গিয়ে জানা যায়, নওগাঁর হাঁপানীয়া মোড়ের পুর্ব দিকে ( নওগাঁ-রাজশাহী মহা সড়কের পাশে) মুক্তিযোদ্ধা মোঃ ময়েন উদ্দীনে দোকানের সামনে বিবাদী মৃতঃ করিম দেওয়ানের ছেলে, সোবান দেওয়ান,আলমগীর দেওয়ান ও আলমগীর দেওয়ানের ছেলে অন্তর দেওয়ান পরিকল্পিত ভাবে ইটের খোয়া ও মাটি দিয়ে পানি চলা-চলের রাস্তায় বাঁধ দিয়ে রেখে উঁত পেতে থাকে। গত ১২/০৭/২০২০ ইং তারিখে বৃষ্টি আসিলে ময়েন উদ্দীনের দোকান ঘর সহ পশ্চিম পার্শের সকল দোকান ঘরে ও বাড়ীর মধ্য পানি ঢুকতে শুরু করে। এমতাস্থায় মুক্তিযোদ্ধা জলা-বদ্ধতার বাঁধটি কেটে দিতে গেলে, পুর্বে থেকে উঁত পেতে থাকা উক্ত আসামীরা কোদাল,হাঁসুয়া ও লোহার রড নিয়ে এসে এলোপাঁতারী ভাবে মুক্তিযোদ্ধা ময়েন উদ্দীনকে মারতে থাকে। সে চিৎকার করতে লাগলে পার্শের দোকান্দার মোতাহার উদ্দীন এসে বাঁধা দিতে গেলে তাকেও এলোপাতারী ভাবে মার-পিট শুরু করে। সোবহান দেওয়ানের হাতে থাকা কোদাল দিয়ে মুক্তিযোদ্ধা ময়েন উদ্দীনকে হত্যার উদ্দ্যেশে মাথায় কোপ দিতে গেলে, সে মাথাটি একটু সড়িয়ে নিলে,কোপটি ঘাড়ে গিয়ে লেগে মারাত্বক রক্তাক্ত জখম করে, ও মাটিতে লুটিয়ে পড়ে। তার বুক পকেটে থাকা ১৫০০০ (১৫ হাজার) টাকাও ছিনিয়ে নেয় আসামীরা। মুক্তিযোদ্ধার ছেলে স্থানীয়দের সহায়তায় মুক্তিযোদ্ধা ময়েন উদ্দীনকে নওগাঁ সদর হাঁসপাতালে ভর্তি করে। বর্তমানে তিনি চিকিৎসাধীন অবস্থায় আছেন।
স্থানীয়রা জানায়, আসামীরা অন্যায় ভাবে, পুর্ব পরিকল্পিত ভাবে পানি চলাচলের জায়গায় বাঁধ দিয়েছিলো আর যেভাবে কোদালের কোপটি দিয়েছিলো,,কোপটি মাথায় লাগলে, নিশ্চিত মারা যেত লোকটি। এ বিষয়ে মুক্তিযোদ্ধার স্ত্রী মোছাঃ লায়লা আরজু বাদী হয়ে নওগাঁ সদর মডেল থানায় একটি এজাহার দায়ের করেন।
আসমীদের বাড়ীতে গেলে, আসামী সোবহানের স্ত্রী ক্ষুদ্য মেজাজে বলে, ঘটনার পর থেকে বাড়ীতে আসে নাই এবং বাড়ীর সাথে কোন যোগাযোগ নেই।
এ ব্যাপারে নওগাঁ সদর মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ মোঃ সোহরাওয়ার্দী হোসেনের কাছে মোবাইল ফোনে জানতে চাইলে, তিনি জানান, এ বিষয়ে মামলা হয়েছে। তদন্ত সাপেক্ষে আইনগত ব্যাবস্থা নেওয়া হবে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *


ফেসবুকে আমাদের অনুসরণ করুন