বৃহস্পতিবার, ২৯ অক্টোবর ২০২০, ০৭:৪৭ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম:
জুয়াড় স্পট দুমড়ে মুচড়ে দিয়েছে সিএমপি!‌‌‌‌! ফুলবাড়ীতে ক্ষতিগ্রস্ত কৃষকদের ক্ষতিপূরণ বাবদ নগদ অর্থ প্রদান যশোর উন্নয়ন ও বিভাগ বাস্তবায়ন পরিষদ তাদের ১১ দফা বাস্তবায়, নড়াইলে অনুষ্ঠিত সংবাদ। লালমনিরহাটের কালীগঞ্জে মৃত ব্যক্তির নামে চেক নিয়ে ১০ হাজার টাকা নজরানা নিলেন যুবলীগ নেতা কাঞ্চন। মৃত্যুর সাথে লড়াই করে হেরে গেলেন নড়াইলের শাওন। নড়াইলে শিশু পরিবারের আট এতিমকে সংশোধনের জন্য দুই মাসের ছুটি সার্ভেয়ার মান্নানের তেলেছমতি কারবার : টাকা দিলে বাঁকা : না দিলে ফাঁকা রামগড়ে মুক্তিযোদ্ধা সন্তান কমান্ডের ১০ম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উদযাপিত পীর বজলুর রহমান ( বুজু) ফকিরের মৃত্যু । কুষ্টিয়ায় ইউপি চেয়ারম্যান কেরামত আলী বিশ্বাসসহ ১১জনের বিরুদ্ধে জমি জালিয়াতির অভিযোগ
ঘোষণা:

ভাগ্য মানুষ নিজেই তৈরি করে-

উজ্জ্বল রায়,সময়ের পথঃ-

️পৃথিবীতে মানুষ হয়ে জন্ম লাভ করা কতই না সৌভাগ্যের ব্যাপার। সেখানে অতি অল্পকালের মধ্যেই কৃষ্ণভক্তি চর্চা করে মানুষ অতি সহজে জন্ম মৃত্যুর ভবসমুদ্র অতিক্রম করে ভগবৎ লোকে পৌঁছতে পারে। তাই স্বর্গের অধিবাসীরা বাসনা করে পৃথিবীতে গিয়ে মানব জন্মগ্রহণ করে শ্রীহরির আরাধনা করার । কিন্তু এই ধরাধামে যে মানুষ কৃষ্ণভজন করছে না সে একটা মায়াগ্রস্ত গণ্ডমুর্খ।

এইভাবে মানুষ নিজেই নিজের ভাগ্য নির্ধারন করে যে মৃত্যুর পর সে কোথায় যাবে। মানুষের কার্যকলাপ চিন্তাভাবনাই তার ফল উৎপন্ন করে।
যেমন, কোন ছাত্র যদি নিয়মিত যত্ন সহকারে পড়াশুনা করে , তবে পরীক্ষায় বসে সে পরীক্ষা খাতায় লিখতে পারবে । তখন সে নিজেকে দুর্ভাগা বলবে না। কিন্তু যে ছাত্র যত্ন সহকারে অধ্যয়ন করেনি সে পরীক্ষা – খাতায় লিখতে বসে নিজেকে দুর্ভাগা মনে করে , কারণ তার লেখার মত কিছুই নেই। নিজেদের সচেতনতাই নিজেদের ভাগ্য নির্ণয় করে।
আবার যেমন , আগুন থেকে সাবধান। কারণ , আগুনের কাজকারবার যেখানে , সেখানে অগ্নিকাণ্ডরূপ বিপদ ঘটতেই পারে। তাই অগ্নি নির্বাপক জাতীয় কোন বস্তু কি জল ইত্যাদি কাছাকাছি আগের থেকেই রাখা উচিত , তখন বিপদ সামলানো যায় । কিন্তু অসচেতন হলে অগ্নিকাণ্ড ঘটলেও নিরুপায় হতে হয় । দেখা যাবে সব পুড়ে গেল। তখন ‘ হায় দুর্ভাগ্য ’ বলে মাথা ঠুকতে হল।
দেখা যায় , রাস্তা খারাপ গাড়ি আস্তে চালালেই হয়। কিন্তু বাহাদুরী দেখিয়ে দ্রুত বেগে গাড়ি চালিয়ে গেলে দুর্ঘটনাকেই ডেকে আনা হয়।

আমাদের বৈদিক শাস্ত্রীয় বিধি অবজ্ঞা করার বদ অভ্যাস হিন্দুদের বেশী আছে। তাই আগামী দিনের জন্য নিদারুণ ক্লেশগুলি আমাদের প্রাপ্য রূপে বিহিত হয় । যেমন , মাছ – মাংস – ডিম আমরা বদ অভ্যাস বশত খেয়ে চলেছি । পরবর্তী জন্মে আমরা অবশ্যই নিম্নতর ইতর হিংস্র প্রাণীর কুলে জন্মগ্রহণ করব , কারণ আমরা ইতর হিংস্র প্রাণীর মতই চেতনা সম্পন্ন লাভ করছি।
আমাদের এই জন্মের যে দেহ , পিতামাতা , ভাই বোন , আত্মীয় স্বজন , বন্ধুবান্ধব , রাষ্ট্র সমাজ , পরিবেশ পরিস্থিতি , সুখ দুঃখ লাভ করেছি — এ সবই আমাদের পূর্ববর্তী জন্মের কর্মফলস্বরূপ। আবার , এই জন্মের কর্মকীর্তির উপর নির্ভর করছে পরজন্মে আমরা কি লাভ করব ?

▪️অতীতের জন্মে সতী গান্ধারী অজ্ঞাতে জলভর্তি স্বর্ণ কলসীর চাপে একটা কচ্ছপের একশটি ডিম নষ্ট করে ফেলেছিলেন বলে সেই মা কচ্ছপের সন্তান – বিরহ – যাতনাও পরবর্তী জন্মে গান্ধারীদেবী ভোগ করেছিলেন , যখন কুরুক্ষেত্রের যুদ্ধে তাঁর একশটি পুত্র নষ্ট হল ।
️রাজা দশরথ অন্ধমুনির পুত্রকে শব্দভেদী বাণ দ্বারা ভ্রান্তিবশত বধ করার ফলে পুত্রশোকে অন্ধমুনি দেহত্যাগ করেন এবং তার ফলস্বরূপ রাজা দশরথকেও পুত্রশোকে দেহত্যাগ করতে হল , রামচন্দ্র যখন বনে চলে গেলেন।

ভাগ্য বলতে বুঝায় কর্মফল বিধি । ভাগ্য মানুষ নিজেই তৈরি করে। এই জন্মে কাউকে অন্যায়ভাবে নিপীড়ন , হত্যা ও অনিষ্ঠ করে দিলে পরবর্তীকালে অন্যায়কারীকেও নিপীড়িত হতে হবে।
এই সমস্ত কর্ম ও কর্মফলের হিসাব যাকে সাধারণ লোক অদৃষ্ট লিখন বা ভাগ্য লিপি বলেন, তা লিপিবদ্ধ হয়ে আছে নরক নামক গ্রহের যমপুরীতে জীবের যাবতীয় পাপ পুণ্যের হিসাব রক্ষক চিত্রগুপ্তের খাতায়।
️পরিশেষে উল্লেখ্য এই যে , ভাগ্যলক্ষ্মীর কৃপায় দুর্ভাগ্য বিনষ্ট হয় । সৌভাগ্য লক্ষ্মী হচ্ছেন ভগবানের অন্তরঙ্গা শক্তি । ভগবৎ – সেবিকা তাঁর কৃপা পেতে হলে আমাদের ভগবানের সেবায় নিযুক্ত থাকতে হবে । ️ভগবানের নির্দেশ বেদ, গীতা, ভাগবত ও সদগুরুর নির্দেশমত জীবন পরিচালিত করতে হবে ।
️ঈশ্বরের শরণাপন্ন হলে ভক্তিযোগের প্রভাবে আমাদের দুর্ভাগ্য নষ্ট হয়ে যায় , সেই কথাও ভগবান শ্রীকৃষ্ণ গীতায় উল্লেখ করেছেন ।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *


ফেসবুকে আমাদের অনুসরণ করুন