Monday, June 6 2020
শিরোনাম
Home / চট্টগ্রাম / রূপালি গিটারবিহীন
ফাইল ছবি

রূপালি গিটারবিহীন

নাসির উদ্দিন মজুমদার : ‘এই রূপালী গিটার ফেলে/ একদিন চলে যাবো দূরে বহু দূরে/ সেদিন চোখের অশ্রু তুমি রেখো/ গোপন করে/ মনে রেখো তুমি কতরাত কতদিন/ শুনিয়েছি গান আমি ক্লান্তিবিহীন/ অধরে তোমার ফোটাতে হাসি/ চলে গেছি আমি সুর থেকে কত সুরে।’ রূপালী গিটার ফেলে গিটার যাদুকর আইয়ুব বাচ্চু চলে গেছেন গত বছর। তাঁর গিটার সুর তুলছে না। কাঁদছে গিটারগুলো। শুধু গিটার নয়, ভক্তরাও কাঁদছে।
১৯৬২ সালের ১৬ আগস্ট চট্টগ্রামে জন্ম নন্দিত ব্যান্ড তারকা ও গিটার লিজেন্ড আইয়ুব বাচ্চুর। ছোটবেলা থেকেই গিটারের প্রেমে পড়েন তিনি। কলেজে জীবনে বন্ধুদের নিয়ে গোল্ডেন বয়েজ নামে একটা ব্যান্ডদল গড়ে তোলেন আইয়ুব বাচ্চু, পরে এর নাম পাল্টে রাখা হয় আগলি বয়েজ। বিয়েবাড়ি, জন্মদিন আর ছোটখাটো নানা অনুষ্ঠানে তাদের এই ব্যান্ডদল গান করতো। আইয়ুব বাচ্চুর বন্ধুরা যে যার মতো একেক দিকে ছড়িয়ে পড়লেও আইয়ুব বাচ্চু ব্যান্ডদল ফিলিংসের সঙ্গে যুক্ত হয়ে যান। এরপর ১৯৮০ সালে তিনি যোগ দেন সোলসে। এই ব্যান্ডের লিডগিটার বাজানোর দায়িত্বে ছিলেন টানা ১০ বছর। ১৯৯১ সালের ৫ এপ্রিল গড়ে তোলেন নতুন ব্যান্ড এলআরবি।
সংগীতের আঙিনায় আইয়ূব বাচ্চু একাধারে গীতিকার, সুরকার, সংগীত পরিচালক এবং গায়ক হিসেবে জনপ্রিয়। মূলত রক ঘরানার কণ্ঠের অধিকারী হলেও আধুনিক গান, ক্লাসিকাল সংগীত এবং লোকগীতি দিয়েও শ্রোতাদের মুগ্ধ করেছেন তিনি। আইয়ুব বাচ্চুর কণ্ঠ দেয়া প্রথম গান হারানো বিকেলের গল্প। আইয়ুব বাচ্চুর গাওয়া জনপ্রিয় কিছু গান সেই তুমি কেন অচেনা হলে, রূপালি গিটার, রাত জাগা পাখি হয়ে, কষ্ট পেতে ভালবাসি, মাধবী, ফেরারি মন, এখন অনেক রাত, ঘুমন্ত শহরে, বার মাস, হাসতে দেখ, এক আকাশের তারা, উড়াল দেব আকাশে। আইয়ুব বাচ্চুর প্রথম প্রকাশিত একক অ্যালবাম রক্তগোলাপ। আইয়ুব বাচ্চুর সফলতার শুরু দ্বিতীয় অ্যালবাম ময়না’র মাধ্যমে। তিনি বেশ কিছু বাংলা ছবিতে প্লেব্যাকও করেছেন। এছাড়া অসংখ্য অ্যালবামেও কণ্ঠ দিয়েছেন আইয়ুব বাচ্চু। এর মধ্যে ময়না, কষ্ট, প্রেম তুমি কষ্ট, দুটি মন, সময়, একা, পথের গান, ভাটির টানে মাটির গানে, জীবন, সাউন্ড অব, সাইলেন্স, রিমঝিম বৃষ্টি অ্যালবামগুলো উল্লেখযোগ্য।
২০১৭ সালের ২০ মে গিটার শো ‘নাও অ্যান্ড দেন’- এ অংশ নিয়ে আইয়ুব বাচ্চু বলেছিলেন, চট্টগ্রাম আমার নাড়ি পোতা শহর। এই শহরে আমার মা ঘুমিয়ে আছেন। এই শহরেই আমি ফিরে আসবো। বছর পেরুতে না পেরুতেই আইয়ুব বাচ্চুর কথাই সত্যি হলো। সবাইকে কাঁদিয়ে তিনি উড়াল দিয়েছেন আকাশের ঠিকানায় সূর্যের সীমানায়। আইয়ুব বাচ্চু তার শহরে ফিরে এসেছিলেন নিথর দেহে। এতো তাড়াতাড়ি যে তাকে এভাবে চট্টগ্রামে ফিরে আসতে হবে কে জানতো। যে ঘুমন্ত শহরকে জাগাবেন বলে একদিন রূপালি গিটার হাতে অলিগলিতে ঘুরে বেড়িয়েছেন, সেই শহরে চিরদিনের মতো ঘুমিয়ে যান কিংবদন্তি সঙ্গীতশিল্পী আইয়ুব বাচ্চু গত বছর এদিনে। ২০ অক্টোবর বিকাল ৫টা ২০ মিনিটে নগরীর চৈতন্য গলির কবরস্থানে মায়ের কবরের পাশেই তিনি চিরনিদ্রায় শায়িত হন।
চাটগাঁইয়া নওজোয়ান গত কাল সন্ধ্যা ৬ টায় মোমিন রোডস্থ প্রিয়া কমিউনিটি সেন্টারে আইয়ুব বাচ্চু স্মরণানুষ্ঠানের আয়োজন করেছে।

 মুভি বাংলা টেলিভিশন পরিবারের আমন্ত্রনে ১৫অক্টোবর থেকে চট্রগ্রামে অবস্থান করছেন একাধারে গীতিকার, সুরকার, সংগীত পরিচালক এবং গায়ক হিসেবে জনপ্রিয়-স্বপ্ন যাবে বাড়ি,স্বপ্ন টানে দিলাম পাড়ি।অচিন পথে আপন ছাড়ি, রঙ্গিলা ভাবের কন্যা, আমার মন ভরে না বন্ধুয়া তোরে ছাড়া, চলো সবাই জীবনের আহবানে এগিয়ে যাই সহ বহু গানের শিল্পী আইয়ুব বাচ্চুর অতি নিকটের স্নেহের বন্ধু ,চোট ভাই মিলন মাহমুদ যিনি প্রতি রাতে চুটে যান প্রবর্তক মোড়ে সেই ‘রূপালী গিটার’এর খোজে ।

About somoyerpoth

Check Also

এস আলম গ্রুপের ভেন্টিলিটর সুবিধাসহ আটটি আইসিইউ শয্যা দিল ঢাকায়,চট্টগ্রাম পাবে তারও বেশি-

স্টাফ রিপোর্টার,সময়ের পথ চট্টগ্রামঃ- চট্টগ্রামে আইসিইউ শয্যার সংকটে এস আলম পরিবারের জ্যেষ্ঠ সন্তানের মৃত্যুর পর …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *