1. admin@somoyerpoth.com : somoyerpoth.com :
শনিবার, ১৮ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৭:৩৬ পূর্বাহ্ন

উলিপুরে ২০ বস্তা সরকারি চাল কালোবাজারে বিক্রয় আটক এক

প্রতিবেদকের নাম:
  • প্রকাশিত: মঙ্গলবার, ১৪ সেপ্টেম্বর, ২০২১
  • ৪৮ বার পড়া হয়েছে

উলিপুরে ২০ বস্তা সরকারি চাল কালোবাজারে বিক্রয় আটক এক
রুহুল আমিন, কুড়িগ্রাম জেলা প্রতিনিধিঃ
কুড়িগ্রামের উলিপুরে খাদ্যবান্ধব কর্মসূচির ২০ বস্তা চাল কালো বাজারে বিক্রয়ের সময় হাতেনাতে আটক করে পুলিশে দিয়েছে জনতা। এসময় চাল পরিবহনকারী দুই ভ্যান চালকসহ দোকান ম্যানেজার আনোয়ার হোসেন নামের এক ব্যক্তিকে আটক করা হয়। ঘটনাটি সোমবার (১৩ সেপ্টেম্বর) দুপুরের হলেও দিনভর নানা নাটকীয়তার পর রাতে উপজেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক বাদী হয়ে মামলা দায়ের করেন।
পুলিশ ও প্রত্যক্ষদর্শি সূত্রে জানা গেছে, সোমবার দুপুর দেড়টার দিকে উলিপুর খাদ্য গুদাম থেকে দুটি ভ্যান গাড়িতে ৫০ কেজি ওজনের সরকারি সিলযুক্ত ২০ বস্তা চাল বের হয়। পরে ভ্যানগাড়ি দুটি পৌর শহরের মধ্য বাজারের মেসার্স কাশেম চালকলের মালিক সেকেন্দার আলীর দোকানে নামিয়ে দিতে থাকেন। এ সময় স্থানীয় লোকজনের সন্দেহ হলে ভ্যান গাড়িসহ চাল আটক করে পুলিশে খবর দেন। খবর পেয়ে তাৎক্ষনিক পুলিশ এসে ওই চাল বহন কারী ভ্যান চালক আব্দুল কুদ্দস ও শহীদ আলীকে জিজ্ঞাসাবাদ করেন। তাদের ভাষ্যমতে চালগুলো তারা উলিপুর খাদ্য গুদাম থেকে এখানে নিয়ে এসেছেন।

তারা আরও বলেন, চাল গুলো খাদ্য বান্ধব কর্মসূচির ডিলার পুবেল সরদারের। এসব চাল খাদ্য ব্যবসায়ী সেকেন্দার আলীর কাছে বিক্রির করছেন বলে জানান তারা। এরপর পুলিশ উপজেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক আলাউদ্দিন বসুনিয়া ও ভারপ্রাপ্ত গুদাম কর্মকর্তা শাহিনুর রহমানকে বিষয়টি জানালেও ঘটনাস্থল থেকে মাত্র চারশগজ দুরে উপজেলা খাদ্য অফিস হওয়া সর্ত্বেও তারা তিন ঘন্টাপর সেখানে পৌছান। এই সুযোগে দোকানের মালিক সেকেন্দার আলী সটকে পড়েন। দুপুর থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত পুলিশি পাহারায় ঘটনাস্থলে চালের বস্তা গুলো থাকলেও উপজেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক ও খাদ্য গুদাম কর্মকর্তার রহস্যজনক ভূমিকার কারনে কোন সমাধান হচ্ছিল না।
স্থানীয়দের অভিযোগ, সরকারি চাল কালোবাজারে বিক্রির সময় হাতে নাতে ধরা পড়লেও দিনভর খাদ্য গুদাম কর্মকর্তাদের নানা নাটকীয়তার পর গভীর রাতে মামলা হওয়ায় গুদাম কর্মকর্তাদের ভুমিকা নিয়েও জনমনে প্রশ্ন উঠেছে। অভিযোগ রয়েছে, খাদ্য গুদাম কর্মকর্তা শাহিনুর রহমান উলিপুর খাদ্য গুদামে যোগদানের পর থেকে বিভিন্ন অনিয়ম ও দুর্নীতে জড়িয়ে পড়েন। এ নিয়ে বিভিন্ন গণমাধ্যমে তার বিরুদ্ধে দুর্নীতির সংবাদ প্রকাশ হওয়ায় খাদ্য বিভাগের উচ্চ পর্যায় থেকে একাধিকবার তদন্ত হয়েছে।
সোমবার সন্ধ্যার পরে পুলিশ ২০ বস্তা (এক মে.টন) চাল, দোকান ম্যানেজার আনোয়ার হোসেনসহ ভ্যান চালকদের থানায় নিয়ে আসেন। এরপর রাতে উপজেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক আলাউদ্দিন বসুনিয়া বাদী হয়ে খাদ্য বান্ধব কর্মসূচীর ডিলার পুবেল সরদার, দোকান মালিক সেকেন্দার আলী ও ম্যানেজার আনোয়ার হোসেনকে আসামী করে বিশেষ ক্ষমতা আইনে সরকারি চাল কালো বাজারের বিক্রয়ের অভিযোগে মামলা দায়ের করেন। মামলা নং-১৬। মামলায় ওই দুই ভ্যান চালককে স্বাক্ষী করা হয়েছে।
এ ব্যাপারে উপজেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক আলাউদ্দিন বসুনিয়া বলেন, সরকারি চাল কালো বাজারের বিক্রয়ের ঘটনায় নিয়ম অনুযায়ী মামলা দায়ের করা হয়েছে। উলিপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) ইমতিয়াজ কবির মামলার বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন, দোকান ম্যানেজারকে মঙ্গলবার আদালতে প্রেরণ করা হয়েছে। একই সাথে ১৬৪ ধারায় জবানবন্দির জন্য ভ্যান চালকদের আদালতে প্রেরণ করা হয়। অন্য আসামীদের গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরো সংবাদ পড়ুন

ওয়েবসাইট ডিজাইন প্রযুক্তি সহায়তায়: ইয়োলো হোস্ট

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত